ডুবন্ত টাইটানিকে রিপাবলিকান দল

  • গত শতাব্দীর মাঝখানে প্রকাশিত ইংল্যান্ডের নামজাদা লেখক জে আর আর টলকিনের ফ্যান্টাসি  কাহিনী লর্ড অব দ্য রিংস্ অবলম্বনে মুভি সিরিজ এ শতাব্দীর শুরুতেই পৃথিবীব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। যুক্তরাষ্ট্র সেনেটের মাইনরিটি লিডার সেনেটর মিচ মেকনালের অবস্থা অনেকটা লর্ড অব দ্য রিংসের ফ্রোডোর মত।

    ওই উপন্যাসের খলনায়ক সাউরন এক অশুভ জাদুকর। তিনি একটি জাদুকরী আংটি তৈরি করেছিলেন যার সম্মোহনী শক্তি ব্যবহার করে তিনি অন্য সবার উপর আধিপত্য কায়েম করবেন। এ জাদুকরী আংটি ব্যবহার করে খলনায়ক সম্পদ এবং স্বৈরশাসনের অধিকারী হওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু আংটিটি ফ্রোডোর তত্ত্বাবধানে চলে আসে। আংটি বহন করে ‘মাউন্ট ডুম’ নামে এক আগ্নেয় পাহাড়ের চূড়ায় নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব ছিল তার। সেখানে রয়েছে ভীষণ গরম লাভায় পরিপূর্ণ আগ্নেয়গিরির মুখ। এখানেই বিবিধ গরম ধাতব বস্তু দিয়ে খলনায়ক সাউরন ওই বিশেষ আংটি তৈরি করে। ফ্রোডোর কাজ হল আংটিটি ছুঁড়ে ফেলতে হবে অগ্নিগিরির মুখগহ্বরে। এছাড়া ওই অশুভ ভয়ংকর আংটি ধ্বংস করার আর অন্য উপায় নেই। সমস্যা হল ওটা যে পায় সে অর্জন করে অলৌকিক ক্ষমতা। আর ক্ষমতায় বিগড়ে যায় সুমতি। অনেক বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে ফ্রোডো চলে গিয়েছিলেন লক্ষ্যস্থলে। কিন্তু তিনি জাদুর আংটি স্বেচ্ছায় হাতছাড়া করেনি। আগ্নেয়গিরির ভয়ার্ত গহ্বরে টগবগ করে লাভা জ্বলছিল এক অলৌকিক ড্রাগনের ক্ষুধার্ত জিহ্বার মত। ফ্রোডো ইচ্ছে করলেই আংটিটি ছুঁড়ে দিতে পারতো আগ্নেয়গিরির লাভায়। তাহলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যেত। কিন্তু ফ্রোডো তা করল না।

    এ বছর ২০২১ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি রাতে টেলিভিশনে উপভোগ করছিলাম কমেডিয়ান জিমি কিমেলের রসিকতা। কিমেলের মতে, দ্ব্যর্থবোধক সিদ্ধান্তে ওস্তাদ মেকনাল ফ্রোডোর এক নিম্নমানের সংস্করণ।

    ব্যাপারটা একটু খোলাসা করে বলি। উপরে বলা কাহিনীর খলনায়ক সাউরন হলেন ডনাল্ড ট্রাম্পের রূপকল্প। তেমনি ফ্রোডো হলেন মেককনেল।

    আংটি হল অপ্রতিরুদ্ধ ক্ষমতার উচ্চতম পদ। এখানকার উপমায় সেটা হবে খলনায়ক ট্রাম্পের জন্য পুনরায় প্রেসিডেন্সি লাভ ২০২৪ সালে। ১৩ ফেব্রুয়ারি সেনেটের ইমপিচমেন্ট বিচারে মেককনেল তার সমর্থকদের সাথে নিয়ে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভোট দিলেই ট্রাম্প আর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারতেন না। জাদুর আংটি ধ্বংস করার সুযোগ পেয়েও মেককনেল তা করলেন না।

    ১৩ ফেব্রুয়ারি সেনেটের ইমপিচমেন্ট এ ট্রাম্পের শাস্তি হল না। কিন্তু এতে প্রমাণ হয়নি যে সে নির্দোষ। বস্তুত ট্রাম্পই ৬ জানুয়ারির ব্যর্থ অভ্যুত্থানের উস্কানি এবং মদদদাতা নেতা। বিচারে শাস্তির বিপক্ষে ভোট দেওয়ার কিছুক্ষণ পর রিপাবলিকান নেতা সেনেটর মিচ মেককনেল সেনেট চেম্বারে একটি অদ্ভুত ভাষণ দিয়েছিলেন। মেককনেল বলেছিলেন, “কার্যত এবং নীতিগতভাবে ট্রাম্পই ৬ জানুয়ারির অভ্যুত্থানের জন্য দায়ী। … এটা ছিল ধাপে ধাপে তীব্র হতে তীব্রতর চরম অবস্থার দিকে ধাবমান ষড়যন্ত্র তত্ত্ব যা ট্রাম্প কর্তৃক সুষ্ঠুভাবে সমন্বিত করা হয়েছিল এক সশস্ত্র অভ্যুত্থানে। বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের উদ্দেশ্য ছিল নির্বাচনে ভোটারদের সিদ্ধান্ত উলটে দেওয়ার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ প্রচেষ্টা। অথবা ট্রাম্পের উদ্দেশ্য ছিল প্রেসিডেন্সি থেকে বিদায়ের আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোকে আগুনে পুড়িয়ে ফেলা।”

    মেককনেল আরও বলেন, “ট্রাম্প টেলিভিশনের পর্দায় দেখছিলেন সন্ত্রাস ও ধ্বংসের অগ্রগতি। দেখছিলেন উচ্ছৃঙ্খল দাঙ্গাকারী জনতা ক্যাপিটল হিল আক্রমণ করেছে তার নামে। এ দুষ্কৃতিকারীরা বহন করছিল তার ব্যানার, প্রতিস্থাপন করছিল তার পতাকা এবং উচ্চস্বরে চিৎকার করে শ্লোগান দিচ্ছিল তার পক্ষে।”

    মেককনেলের ভাষণে ট্রাম্প নিশ্চিত অপরাধী। তবুও মেককনেল এ ইমপিচমেন্টের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিলেন। সুযোগের সদ্ব্যবহার করার সাহস ছিল না। এ কারণে রিপাবলিকান রাজনীতিতে শক্তিশালী অবস্থানে থেকে গেলেন ট্রাম্প।

    রিপাবলিকানদের মধ্যে যারা তার ইমপিচমেন্টের পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন একে একে তাদের সরিয়ে দিচ্ছেন ট্রাম্পের বংশবদ রিপাবলিকানরা। এমনি এক বিদ্রোহী হলেন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের রিপাবলিকান দলীয় নেতৃত্বে তৃতীয় পদ ধারী কনফারেন্স চেয়ার লিজ চেনী। ১২ মে সকালে কণ্ঠস্বর ভোটে তাকে সরিয়ে দেওয়া হল। বসিয়ে দেওয়া হবে অচিরেই নিউ ইয়র্ক হতে নির্বাচিত কংগ্রেস সদস্য অ্যালিস স্টেফিনিককে। এ ছত্রিশ বছর বয়স্ক নারী রিপাবলিকানদের রাজনৈতিক আকাশের উঠতি উজ্জ্বল নক্ষত্র। আমার বড় ছেলে তুরহানের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাচ মেইট।

    ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যে রিপাবলিকানরা ইমপিচমেন্টের পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন তাদের বিরুদ্ধে আগামী প্রাইমারি নির্বাচনে ট্রাম্প তার অনুগত নবাগত চরম দক্ষিনপন্থিদের দাঁড় করিয়ে দিচ্ছেন। মেকনালের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক ট্রাম্পের হুংকার অনেকেই ভাবছেন অর্থপূর্ণ। ট্রাম্প বলেছেন, মেকনাল প্রাণশক্তিহীন এবং নির্বোধ। (ফর্বস ম্যাগাজিন মে ৫, ২০২১ )।

    ফক্স নিউজের উদ্ধৃতি দিয়ে ২৯ এপ্রিল রয়টার্স এর রিপোর্ট অনুযায়ী ট্রাম্পের ভাষ্য: মিচ মেকনাল ভাল কাজ করেননি। আমি চিন্তা করছি রিপাবলিকানদের উচিত নেতৃত্বের পদ হতে মেকনালকে সরিয়ে দেওয়া।

    অপরদিকে ৯ মে ট্রাম্প বিদ্রোহী ইলিনয় স্টেটের রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান অ্যাডাম কিনজিঙ্গার তাদের চলমান গৃহযুদ্ধকে তুলনা করেছেন অতলান্তিক মহাসাগরে ডুবন্ত টাইটানিক জাহাজের সাথে (সূত্র: সেলন, মে ৫, ২০২১)। ওই একই নিউজ ওয়েবসাইট ৯ মে উদ্ধৃত করেছে ম্যারিল্যান্ডের রিপাবলিকান গভর্নর ল্যারি হোগানের এনবিসি ‘মিট দ্য প্রেস’ এ সাক্ষাৎকার। লিজ চেনীর অপসারণ এবং ইমপিচমেন্টের পক্ষে ভোট দেওয়া রিপাবলিকানদের শাস্তি দেওয়াকে গভর্নর হোগান তুলনা করেছেন বৃত্তাকার ফায়ারিং স্কোয়াডের সাথে। আরকানসা স্টেটের দুই টার্ম বর্তমানের রিপাবলিকান গভর্নর এসা হাটচিনসন বলেছেন, “…সাবেক প্রেসিডেন্ট আমাদের দলকে বিভক্ত করছেন, তার সাথে আমরা যোগ দেব না।” ( সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট- মে ১১, ২০২১)

    সেনেটের রিপাবলিকান নেতা মিচ মেককনেল, টলকিনের কাল্পনিক চরিত্র ফ্রোডো, সুযোগের সদ্ব্যবহার করেননি। তার ফল হিসেবে রিপাবলিকান দলের বহমান গৃহযুদ্ধ ক্রমশ ক্লাসিক্যাল গ্রিসের বিয়োগান্তক নাটকের রূপ ধারণ করবে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*