পেঁয়াজ আমদানিতে স্বস্তি ফিরছে, আলুর বাজার বেহাল

বায়েজিদ ডেস্ক :  নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পেঁয়াজের দামে স্বস্তি ফিরলেও বেহাল আলুর বাজার। পাইকারি ও খুচরা বাজারে দাম নিয়ে রীতিমতো লুকোচুরি খেলা চলছে।

ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের পর আদা, রসুন আমদানিকারকসহ বড় কয়েকটি শিল্পগ্রুপ মিয়ানমার, পাকিস্তান, চীন, মিশর, তুরস্ক, মধ্যপ্রাচ্যসহ দেড় ডজনের বেশি দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির উদ্যোগ নেয়। সমুদ্রপথে চট্টগ্রাম বন্দর হয়ে এসব পেঁয়াজের চালান দ্রুততম সময়ের মধ্যে আসতে শুরু করে। এখন বন্দর থেকে প্রায় প্রতিদিনই খালাস হচ্ছে পেঁয়াজ। ফলে বাজারে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে।

চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপপরিচালক ড. আসাদুজ্জামান বুলবুল মিডিয়াকে জানান, মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) পর্যন্ত সমুদ্রপথে ৩৩০টি আমদানি অনুমতিপত্রের বিপরীতে চট্টগ্রাম বন্দরে আসা ২১ হাজার ৩২১ টন পেঁয়াজের ছাড়পত্র ইস্যু করেছি আমরা। মোট ৫৬৭টি আইপির বিপরীতে ১ লাখ ৯৮ হাজার ৫৫৪ টন পেয়াজের আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে চট্টগ্রাম কেন্দ্র থেকে। এর বাইরে ঢাকা থেকেও আইপি নিয়েছেন অনেক আমদানিকারক।

খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের বড় বিপণিকেন্দ্র  হামিদুল্লাহ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইদ্রিস বলেন, পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়ছে। মিয়ানমারের পেঁয়াজ ৬৮-৭০, দেশি ৭৮ টাকা বিক্রি হলেও পাকিস্তান, মিশর, চীনা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে মানভেদে ৪৫-৬০ টাকা। ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের পর বাড়তি দাম থেকে এখন পাইকারিতে ১০-১৫ টাকা কমেছে। ধীরে ধীরে যার প্রভাব খুচরায়ও পড়েছে।

সম্পাদনা-এসপিটি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*